১. কোন কোচিং এ ভর্তি হবো??

অলরেডি মনে হয় প্রায় সবাই কোচিং এ ভর্তি হয়ে গেছো। আর যারা হওনি তারা তোমার স্বপ্ন যেই লাইনে পড়ার সেই লাইনের একটা কোচিং এ ভর্তি হয়ে যেতে পারো। কোচিং এ যে ভর্তি হওয়া বাধ্যতামূলক এমনটি নয়। কেউ কেউ কোচিং না করেও চান্স পায় আবার কেউ কেউ একসাথে ২ টাতে কোচিং করেও চান্স পায় না। নিজে বাসায় কতটুকু পড়াশুনা করছো সেটাই আসল। তবে গাইডলাইনের অবশ্যই প্রয়োজন আছে। সেটা বড় ভাই হোক, কোচিং হোক বা অন্যকিছু।

২. কোচিং এর পাশাপাশি কি ভাইয়াদের কাছে প্রাইভেট পড়বো??

টাকা এবং হাতে সময় বেশি থাকলে পড়তে পারো। পড়লে ক্ষতি নেই। নাহয় এতটা জরুরি কিছু না। যদি মনে করো পড়লে তুমি উপকৃত হবে তাহলে পড়তে পারো। তবে নিজে কিন্তু বাসায় পড়তে হবে। এটা বেশি জরুরি। পারলেও একই জিনিষ বারবার অনুশীলন করতে হবে। এতে পরীক্ষার হলে তোমার সময় কিছুটা বেঁচে যাবে। কমসময় লাগবে ম্যাথটা সমাধান করতে।

৩. প্রতিদিন কত ঘন্টা পড়তে হবে??

আসলে এটা নিজের উপর। কেউ ৪ ঘন্টায় একদিনের কোচিং এর পড়া শেষ করতে পারে, কারো আবার ১০ ঘন্টা লাগে একই পড়া শেষ করতে। তাই কে কয় ঘন্টা পড়লো না দেখে নিজে বুঝে, নিজের কতোসময় লাগবে পড়তে সে অনুযায়ী পড়লেই হবে। আবার সারাদিন বই নিয়ে বসে থাকার দরকার নেই। মনটা ফ্রেশ রাখার চেষ্টা করবে সবসময়ই। তাহলে পড়ায় মন বসবে। পড়াটা মাথায় বেশি সময়ের জন্য গেঁথে যাবে। মাথায় রেখো তুমি যতটুকু পড়বে ততটুকুই তুমি অন্যদের চেয়ে এগিয়ে যাবে।

৪. কোচিং এর শিট পড়বো, নাকি মূল বই??

অবশ্যই প্রথমে মূলবই। তবে পুরনো মোটা বইগুলোর সাহায্য নিতে হবে। পদার্থ,রসায়নের অংক গুলোর জন্য। মূল বই থেকে প্রতিটি অধ্যায় পড়ার পর সেই অধ্যায়ের বিগত বছরের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নগুলো সমাধান করতে হবে। তারপর সময় থাকলে আবার মূল বই। তারপর সময় থাকলে কোচিং এর শিট।

৫. শুনেছি এডমিশনের আর কলেজের একাডেমিক পড়ার মধ্যে নাকি পার্থক্য আছে??

হ্যা আছে। কলেজে যেই অঙ্কগুলো বড় করে করতে এখন সেগুলো শর্ট সূএ দিয়ে করতে হবে। যার কিছুটা কোচিং এ শিখাবে আর বাকীটা নিজ দ্বায়িত্বেই পড়তে হবে। যারা পড়বে তারাই এগিয়ে যাবে। আর এডমিশনে সব বেসিক প্রশ্নগুলোই বেশি আসে। কলেজে যেই অধ্যায় ১ মাসে পড়িয়েছে এখন সেটা ১ দিনে পড়াবে। তবে হতাশার কিছু নেই। সবার কিন্তু একই অবস্হা। তাই বার বার বলছি কোনমতেই হতাশ হওয়া যাবে না।

৬. আমি তো কলেজে থাকাকালীন তেমন পড়াশুনা করি নি, আমাকে দিয়ে কি কিছু হবে??

তোমাকে দিয়ে হবে কিনা, সেটা অনেকাংশেই নির্ভর করবে তোমার নিজের উপর। আগে কে কি করেছো সেটা ভুলে যাও,পরবর্তী ৩ টা মাস কি করবে সেটাই আসল। আজ পড়বো, কাল পড়বো না করে এখনই পড়তে বসে যাও। হ্যা এখনই। আর সৃষ্টিকর্তা সবঠিক করবেন। কিন্তু তিনি অবশ্যই তোমার পরিশ্রমের ফলাফল তোমাকে দিবেন।

সকলের জন্য শুভকামনা রইলো। যেকোন প্রয়োজনে যোগাযোগ করতে পারো আমাদের সাথে। আমরা তোমাদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো। আর্টিকেলটিবন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলো না 😀

0 0 vote
Article Rating
Rate This Article
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments