সিজিপিএ না দক্ষতা? চাকরির বাজারে কোনটি এগিয়ে?

সিজিপিএ না দক্ষতা? চাকরির বাজারে কোনটি এগিয়ে?

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেশনালের ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী নওরিন সালসাভিল বর্তমানে ইন্টার্নশিপ করছে হিউম্যান রিসোর্স টেকনোলজি বেসড কোম্পানি কালকে-তে। চাকরির বাজার নিয়ে ধারণা এবং পূর্ব অভিজ্ঞতা কম থাকায়, সমবয়সী আর দশটা শিক্ষার্থীর মত জীবনের এই প্রান্তে এসে নাওরিনও দ্বিধাদ্বন্দে ভুগছিল, সিজিপিএ না দক্ষতা? এমনকি কালকে-তে আবেদন করার সময়ও নওরিন খুব একটা আত্মবিশ্বাসী ছিল না। কারণ তার ধারণা ছিল, চাকরির বাজারে গড়পারতা সিজিপিএ থেকে উচ্চ সিজিপিএ-ধারী আবেদনকারীরা সবসময়ই অগ্রাধিকার পায়।

তবে নওরিনের ধারণা কিছুটা হলেও ভুল প্রমাণিত হয় যখন সে তার দক্ষতা, লিডারশীপ এবং কর্মক্ষমতার জোরে ইন্টারভিউ বোর্ডে টিকে যায়। নওরিনের মতোই বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে শেষের দিকে আমরা যেই দোটানায় পড়ি, তা হচ্ছে সিজিপিএ না কর্মদক্ষতা? চাকরির বাজারে কোনটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ?

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একাডেমিক সার্টিফিকেটের প্রয়োজনীয়তা কেমন?

২০২০ সালের আগস্ট মাসে InsideHook ওয়েবসাইটে প্রকাশিত আরটিকেলের মতে, গুগল জানায় তাদের কোম্পানিতে কাজ করতে ৪ বছরের স্নাতক ডিগ্রীর সার্টিফিকেট জরুরি নয়, অন্তত কিছু কিছু পজিশনের ক্ষেত্রে। প্রায় একই রকম চিত্র দেখা যায় অ্যাপল, অ্যামাজন, আইবিএমের মত বড় বড় কোম্পানির ক্ষেত্রেও। অনেক ক্ষেত্রেই তারা সার্টিফিকেটের চেয়ে দক্ষতার মূল্যায়ন বেশী করে।

কিন্তু বলা বাহুল্য বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এখনো চাকরির বাজারে ডিগ্রী বা অ্যাকাডেমিক সার্টিফিকেট এবং রেজাল্টকে অনেকাংশেই প্রাধান্য দেয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হতে হলে অন্তত স্নাতকোত্তর ডিগ্রী ও ৩.৫০ এর উপরে সিজিপিএ রাখা অনেকটাই আবশ্যক।

তরুণ প্রজন্মের কাছে বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় জব সেক্টর হচ্ছে ব্যাংক এবং মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি। বেসরকারি ব্যাংক এবং মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলোতে সবসময় আবেদনের জন্য নূন্যতম সিজিপিএ ধরে দেয়া হয় না। তবে দেখা যায় বেশি সিজিপিএ সহ আবেদনকারীদের অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে। আবার সরকারি ব্যাংকগুলোতে উল্লেখ থাকে ২.০০ এর উপর সিজিপিএ থাকতে হবে। প্রাথমিকভাবে সিভি জমা দেয়ার জন্য মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক এবং স্নাতক এই তিনধাপের কোনো এক ধাপেও তৃতীয় বিভাগ গ্রহণযোগ্য নয়।

কিন্তু ইতোমধ্যে শ’খানেক কর্পোরেট গ্রুমার বলে ফেলেছেন যে, সিজিপিএ ম্যাটার করে না। তাহলে কোনটা সঠিক? 

পেশাদাররা কী মনে করেন?

বাংলালিংকের ট্রেড-মার্কেটিং ম্যানেজার পার্বণ আচার্য্যর কাছে এ বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, “সিজিপিএ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। সিজিপিএ-ই একটা শিক্ষার্থীর প্রথম ইম্প্রেশন বহন করে। এর দ্বারা একজন শিক্ষাজীবনে তার দায়িত্বের প্রতি কতটা আন্তরিক এবং শৃঙ্খল ছিল তা বোঝা যায়। এর থেকে নিয়োগকর্তাও কাউকে নিয়োগ করার পরে সে কতটুকু দায়িত্বশীল এবং নিবেদিত হবে তা ধারণা করেন। এইজন্য সিজিপিএ-কে কর্মক্ষমতার একটি মাপকাঠি হিসেবে গণনা করা হয়।

এরপরেও, সিজিপিএ কম হতেই পারে। কিন্তু তা হওয়ার পেছনে একটা যুক্তিসঙ্গত কারণ থাকা আবশ্যক। যদি আপনি দেখাতে পারেন আপনি শিক্ষাজীবনে এমন দক্ষতা অর্জনে ব্যস্ত ছিলেন যা আপনাকে চাকরির ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে, তবে তা আপনার চাকরির আবেদনে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে সক্ষম।

সিজিপিএ এবং দক্ষতার সামঞ্জস্যতা রাখা জরুরি। প্রায়শই আমরা এর মাঝে যেকোনো একটার পেছনে অনেক সময় ব্যয় করে আরেকটাতে তেমন মনোযোগ দিতে পারি না। কিন্তু বর্তমানে ভাল চাকরি পাওয়ার জন্য দুইটাই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। 

একটা নূন্যতম সিজিপিএ সবারই ধরে রাখা দরকার। কারণ নিয়োগকর্তারা অনেকক্ষেত্রেই প্রথমবার সিজিপিএ-এর ভিত্তিতে সিভি শর্টলিস্ট করে। একজন শিক্ষার্থীর নূন্যতম ৩.০০ ধরে রাখা উত্তম। নতুবা অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানে সে সিভিই জমা দিতে পারবে না।”

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনপ্রিয় এবং ক্রমশ বর্ধমান কর্পোরেশনের হিউম্যান রিসোর্স এক্সিকিউটিভকে কর্মক্ষেত্রে এ বিষয় তার অভিজ্ঞতা নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, 

“গত একবছরে আমি পুরো নিজ দায়িত্বে কমপক্ষে দশজন নতুন সদস্য নিয়োগ করেছি। এক্ষেত্রে আমি ৩.৪০ পাওয়া একজনকে বাদ দিয়ে ২.৯০ পাওয়া একজনকে নির্বাচন করেছি। আমি সিজিপিএ-এর ওয়েট অন্য আরো প্রয়োজনীয় ক্রাইটেরিয়া থেকে কম ধরেছি। কারণ আমার ভালো ছাত্রের থেকেও দরকার ছিলো এমন একজনকে যে আমার প্রতিষ্ঠানের মানোন্নয়ন করতে পারবে। ফলাফল? এই এক বছরে আমার নির্বাচিত ব্যাচকে নিয়ে কেউ কখনো কোনো নালিশ করতে পারেনি।

কিন্তু এখন যেই প্রতিষ্ঠানে সিজিপিএকেই সবচেয়ে বেশি মূল্যায়ন করা হয়, সেখানে এমনটা হবে না। সেখানে ২.৯০ থেকে অবশ্যই ৩.৪০ কে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। তাই সিজিপিএ একদম ম্যাটার করে না, এমনটাও না। ফ্রেশম্যান থাকতে আমরাও শুনতাম সিজিপিএ-এর কোনো ভ্যালু নেই। কিন্তু আমার মতে, নূন্যতম একটা সিজিপিএ মেইনটেইন করলে নিরাপদে থাকা যায়।

এখন সিভি-তে সিজিপিএ ম্যাটার করে কী করে না? তা নির্ভর করে পুরোপুরি নিয়োগকর্তার উপর।”

বাংলাদেশের লিডিং মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির ফাইন্যান্স প্রফেশনাল বলেন, “জব সেক্টরে, সিজিপিএ একমাত্র না বরং অন্যতম বিবেচ্য বিষয়। ৩.০০ এর নিচে সিজিপিএ নিয়ে অনেক প্রশ্ন উঠতে পারে তবে তা উতরে উঠা সম্ভব। ৩.৫০ এর উপরে সিজিপিএ সিভিতে দেখতে অনেক ভাল দেখালেও তা চাকরির নিশ্চয়তা দিবে না। বিশেষভাবে আপনি যদি ইন্টারভিউ বোর্ডে সেলফ-প্রোমোশন এর মাধ্যমে আপনার প্রেজেন্টেশন, ইংরেজিতে দক্ষতা, লিডারশীপ ইত্যাদি আন্তঃব্যাক্তিক দক্ষতা ফুটিয়ে তুলতে না পারেন।”

বাংলাদেশের একজন বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তার (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) সিজিপিএ অন্যদের তুলনায় অনেক কম থাকলেও ছাত্রজীবনে তিনি ভার্সিটির বড় বড় গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট নিজ হাতে নামিয়েছেন। তিনি বলেন, “এক্সট্রাকারিকুলামে অনেক নিষ্ক্রিয় থাকা আমার বেশকিছু বন্ধু যখন আমার আগে চাকরি পেয়ে যাচ্ছিল, তখন অনেক হতাশ হয়ে পড়েছিলাম।

কিন্তু মনে হল, ৫টা প্রতিষ্ঠান যদি সিজিপিএ-কে বেশি মূল্যায়ন করে তাহলে আরো ৫টা আছে যেগুলো করে না। আমার কাজ হচ্ছে শুধু ঐ প্রতিষ্ঠানগুলোতে আবেদন করা। আমার অনেক জুনিয়র আমার কাছে আসে কম সিজিপিএ নিয়ে কী করবে সে বিষয়ে পরামর্শ চাইতে, আমি তাদেরও একই কথা বলি।”

তাহলে কী করা উচিৎ?

সিজিপিএ না দক্ষতা চাকরির বাজারে কোনটি এগিয়ে
চাকরি পাওয়া না পাওয়া অনেক কিছুর উপর নির্ভর করে। অস্থিতিশীল চাকরির বাজারে আপনার নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা অনেক কম। কিন্তু “সেইফ জোন”-এ থাকার জন্য কিছু জিনিস আপনি শুরু থেকেই ঠিক করে রাখতে পারেন –
  • পরবর্তীতে হতাশায় না ভুগতে চাইলে, শুরুতেই নিজের লক্ষ্য নির্ধারণ করে নিতে হবে। যদি কেউ শিক্ষকতায় যেতে চায় তবে তাকে লেখাপড়ায় সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। আবার যদি এমন কোনো জব সেক্টরে যেতে চায় যেখানে স্কিলের মূল্য সবচেয়ে বেশি, তাহলে স্কিল ডেভেলপমেন্টে মনোযোগ দিতে হবে। সেই সাথে একটা নূন্যতম সিজিপিএ ধরে রাখতে হবে।

  • সিজিপিএ কম থাকলে অনেক প্রতিষ্ঠানে বা চাকরির বিজ্ঞপ্তিতে আবেদন করা যাবে না। এ কথাটা মাথায় রেখে আগাতে হবে যাতে কোনো অপশন বন্ধ না হয়ে যায়।

  • স্নাতকের চার বছরে পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে বা ছুটির সময় দক্ষতা অর্জন করার চেষ্টা করতে হবে। যেমন, সকল প্রতিষ্ঠানের যেকোনো পজিশনের ক্ষেত্রেই এক্সেলে দক্ষ ব্যক্তি অগ্রাধিকার পায়। এক্সেলের ফান্ডামেন্টালগুলো পাকাপোক্ত করে এক্সেল নিয়ে আরো কমফোর্টেবল ফীল করতে MS Excel Basics for Beginners ফ্রি কোর্সটি করে রাখতে পারেন। কিন্তু আপনি যদি আরেকটু এ্যাডভান্স লেভেলে যেতে চান আর আপনার হাতে যদি ৪০ ঘন্টার মতো সময় থাকে তাহলে Excellence with Excel কোর্সটিতে এনরোল করতে পারেন।

  • ভিনদেশী ভাষায় দক্ষতা অর্জন করতে পারলে অনেক প্রতিষ্ঠানে অগ্রাধিকার পাওয়া যায়। বিশেষ করে ম্যান্দারিন ভাষায় দক্ষ ব্যক্তিরা দেশি-বিদেশি চাকরির বাজারে অনেক সুবিধা পেয়ে থাকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটে আপনি ম্যান্দারিন সহ জার্মান, স্প্যানিশ, ফ্রেঞ্চ, রাশিয়ান, পর্তুগীজ নানান ভাষা শিখতে পারবেন।

  • বর্তমানে আরেক যে স্কিলটি সর্বত্র অনেক সমাদৃত সেটা হচ্ছে গ্রাফিক্স ডিজাইন। শুধু অন্যত্র চাকরির আবেদনেই নয়, বরং নিজস্ব ছোট-খাট ব্যবসা করতে গেলেও নিজের গ্রাফিক্স ডিজাইনিং জানা থাকলে অনেক সুবিধা পাওয়া যায়। এর সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে, নূন্যতম কম্পিউটার ধারণা থাকলেই যেকেউ এই স্কিল অর্জন করতে পারে।
গ্রাফিক্স ডিজাইনিং শিখতে ইউটিউবে ফ্রি টিউটোরিয়ালের কমতি নেই। তবে পরিপূর্ণ গাইডলাইন পেতে ও একেবারে শূন্য থেকে শুরু করে নিজেই গ্রাফিক্স ডিজাইন করার কনফিডেন্স পেতে চাইলে অনলাইন কোর্স হতে পারে সবচেয়ে ভালো মাধ্যম। Coursera এর Graphics Design Specialization এবং Udacity এর Intro to the Design of Everyday Things ফ্রি কোর্সগুলো গ্রাফিক্স ডিজাইনিং শেখার জন্য বেশ কার্যকর। আর সম্পূর্ণ বাংলায়, থিওরি ও প্র্যাক্টিক্যালের সমন্বয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইনিং শিখতে আছে Master the Fundamentals of Adobe Illustrator ফ্রি এবং সার্টিফিকেট সহ কোর্সটি।

সবশেষে, অ্যাকাডেমিক রেজাল্টই সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ এমন চিন্তাভাবনা থেকে আমাদের দেশের নিয়োগকর্তারা অনেকটা বের হয়ে আসতে পারলেও, “সিজিপিএ ডাজেন্ট ম্যাটার” এরকম কথা অন্যান্য দেশের মত আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে এখনো উপযুক্ত না। আবার দিনকে দিন প্রায় সব প্রতিষ্ঠানেই একাডেমিক রেজাল্টের চেয়ে স্কিলকে অনেক গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

তাই বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে, গ্র‍্যাজুয়েশনের পরে দুশ্চিন্তামুক্ত থাকতে হলে স্কিল আর রেজাল্টের মাঝে ব্যালেন্স ধরে রাখা উচিৎ। সিজিপিএ যাই হোক না কেন, বর্তমানে চাকরির বাজারের সাথে খাপ খাইয়ে নেয়ার জন্য সবাইকেই লেখাপড়ার পাশাপাশি ইন্ডাস্ট্রির সাথে সমাঞ্জস্যকর হার্ড এবং সফট স্কিল অর্জন করতে হবে।

0 0 vote
Article Rating
Rate This Article
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments